ঝিনাইদহ জেলার বিখ্যাত ব্যক্তি

ঝিনাইদহ জেলার বিখ্যাত ব্যক্তি-ঝিনাইদহ জেলার মহান ব্যক্তি কে কে?

ঝিনাইদহ জেলার বিখ্যাত ব্যক্তি, বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে অবস্থিত, ঝিনাইদহ জেলা একটি সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য নিয়ে গর্বিত এবং অসংখ্য প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বের জন্মস্থান হয়েছে।

ঝিনাইদহ জেলার বিখ্যাত ব্যক্তি

তাদের মধ্যে একজন আলোকিত ব্যক্তি দাঁড়িয়ে আছেন – ড. মুহাম্মদ ইউনূস। ক্ষুদ্রঋণ ক্ষেত্রে তার যুগান্তকারী কাজের জন্য বিশ্বব্যাপী খ্যাতিমান, ড. ইউনূস শুধু ঝিনাইদহের প্রশংসাই বয়ে আনেননি, বিশ্ব মঞ্চে একটি অমোঘ চিহ্ন রেখে গেছেন।

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা:

28 জুন, 1940 সালে ঝিনাইদহের বথুয়া গ্রামে জন্মগ্রহণকারী মুহাম্মদ ইউনূস একটি ঘনিষ্ঠ পরিবারে বেড়ে ওঠেন যা শিক্ষা এবং সমাজসেবাকে মূল্য দেয়। তার পিতা হাজী দুলা মিয়া ছিলেন একজন জুয়েলারী এবং তার মা সুফিয়া খাতুন ছিলেন একজন ধর্মপ্রাণ গৃহিণী। তরুণ ইউনূস স্থানীয় স্কুলে পড়াশোনা করেছেন, ছোটবেলা থেকেই অসাধারণ একাডেমিক দক্ষতা প্রদর্শন করেছেন।

উচ্চ শিক্ষার জন্য ইউনূস যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান, যেখানে তিনি পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। 1969 সালে ভ্যান্ডারবিল্ট ইউনিভার্সিটি থেকে অর্থনীতিতে। তিনি খুব কমই জানতেন যে এই একাডেমিক যাত্রা দারিদ্র্য বিমোচনে তার যুগান্তকারী অবদানের ভিত্তি তৈরি করবে।

ক্ষুদ্রঋণের জন্ম:

ড. ইউনূসের গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তটি 1976 সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নিকটবর্তী একটি গ্রামীণ গ্রামে পরিদর্শনের সময় আসে, যেখানে তিনি অর্থনীতির অধ্যাপক ছিলেন। ঋণের সুযোগের অভাবে দারিদ্র্যের চক্রে আটকে পড়া দরিদ্র নারীদের সংগ্রামের সাক্ষী হয়ে, তিনি দরিদ্রদের নিজেদের ব্যবসা শুরু করার জন্য তাদের ক্ষমতায়নের জন্য ছোট ঋণ প্রদানের ধারণাটি কল্পনা করেছিলেন।

1983 সালে, তিনি গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করেন, একটি প্রতিষ্ঠান যা ক্ষুদ্রঋণের ধারণার পথপ্রদর্শক। গ্রামীণ ব্যাংক দরিদ্র ব্যক্তি বিশেষ করে নারীদের ক্ষুদ্র, জামানত-বিহীন ঋণ প্রদান করে, যাতে তারা তাদের ক্ষুদ্র উদ্যোগ তৈরি ও প্রসারিত করতে সক্ষম হয়। এই বৈপ্লবিক পন্থা প্রথাগত ব্যাঙ্কিং মডেলকে চ্যালেঞ্জ করেছিল এবং দেখিয়েছিল যে দরিদ্ররা ঋণের যোগ্য।

নোবেল শান্তি পুরস্কার এবং বৈশ্বিক প্রভাব:

ড. ইউনূসের কাজের প্রভাব জাতীয় সীমানা অতিক্রম করে, তাকে বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি প্রদান করে। 2006 সালে, তিনি, গ্রামীণ ব্যাংকের সাথে, ক্ষুদ্রঋণের মাধ্যমে দারিদ্র্য দূরীকরণে তাদের প্রচেষ্টার জন্য নোবেল শান্তি পুরস্কারে ভূষিত হন। নোবেল কমিটি “নীচ থেকে অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন সৃষ্টিতে” তার প্রচেষ্টার স্বীকৃতি দিয়েছে।

বাংলাদেশে গ্রামীণ ব্যাংকের সাফল্য বিশ্বব্যাপী অনুরূপ উদ্যোগের মডেল হিসেবে কাজ করেছে, যা বিশ্বব্যাপী ক্ষুদ্রঋণ প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠাকে প্রভাবিত করেছে। আর্থিক অন্তর্ভুক্তির মাধ্যমে দরিদ্রদের ক্ষমতায়নের ডঃ ইউনূসের দৃষ্টিভঙ্গি লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবনকে স্পর্শ করেছে, দারিদ্র্যের শৃঙ্খল ভেঙ্গে এবং টেকসই উন্নয়নকে উৎসাহিত করেছে।

উত্তরাধিকার এবং অব্যাহত ওকালতি:

ড. মুহাম্মদ ইউনূসের উত্তরাধিকার ক্ষুদ্রঋণের বাইরেও বিস্তৃত। তিনি সামাজিক উদ্যোক্তা এবং টেকসই উন্নয়নের জন্য অক্লান্ত উকিল ছিলেন। ব্যক্তি বিশেষ করে নারীদের অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের মাধ্যমে তাদের জীবন পরিবর্তনের সম্ভাবনার প্রতি তার বিশ্বাস অগণিত অন্যকে তার পদাঙ্ক অনুসরণ করতে অনুপ্রাণিত করেছে।

উপসংহার:

সাংস্কৃতিক ইতিহাসে সমৃদ্ধ একটি জেলা ঝিনাইদহ, ডক্টর মুহাম্মদ ইউনূসকে তার সবচেয়ে কৃতী সন্তান হিসেবে গর্বিতভাবে দাবি করতে পারে। একটি ছোট গ্রাম থেকে বিশ্ব মঞ্চে তার যাত্রা শিক্ষা, সহানুভূতি এবং উদ্ভাবনী চিন্তার রূপান্তরকারী শক্তির উদাহরণ দেয়। ক্ষুদ্রঋণে ডঃ ইউনূসের অগ্রগামী কাজ প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করে চলেছে, প্রমাণ করে যে ইতিবাচক পরিবর্তন সবচেয়ে নম্র সূচনা থেকে শুরু হতে পারে এবং ভৌগলিক সীমানা ছাড়িয়ে যেতে পারে।

আফিম যুদ্ধ! প্রথম বিশ্বযুদ্ধে চীনের প্রভাব ও চিনে প্রথম অহিফেন যুদ্ধের কারণ কী?

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top