আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ সম্পর্কে বিস্তারিত সকল তথ্য জেনে নিন!

বর্তমানে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরে অবস্থিত উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলির মাঝে আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ অন্যতম একটি প্রতিষ্ঠান। যার ডিসিপ্লিন এবং ভালো রেজাল্ট মুগ্ধ করেছে প্রতিটি অবিভাবককে। যেখানে নিজের সন্তানকে পড়াতে পেরে বেশ স্বস্তিবোধ করেন অসংখ্য বাবা-মা। প্রিয় রিডার্স! আপনি কি জানেন, কেনো এই আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এতোটা জনপ্রিয়? কেনোই বা আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর রেজাল্ট অসম্ভব ভালো? চলুন তবে আজ এই “কেনো” এর উত্তর খোঁজা যাক। পাশাপাশি জেনে নেওয়া যাক আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ সম্পর্কিত বেশকিছু ইন্টারেস্টিং ফ্যাক্ট সম্পর্কে। 

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ পরিচিতি

আর্টিকেলের শুরুতেই আমরা আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ সম্পর্কে কিছু প্রাথমিক তথ্য নিয়ে আলোচনা করবো। 

নাম শুনেই হয়তো বুঝতে পেরেছেন এটি একটি উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। যা বর্তমানে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার শিক্ষা সেক্টরে যথেষ্ট এগিয়ে রয়েছে। স্বনামধন্য এই উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির নীতিবাক্য হলো, “শিক্ষা, শৃঙ্খলা, নৈতিকতা”! যা মূলত একজন সঠিক মানুষের শিক্ষার দিক, শান্তি-শৃঙ্খলার দিক এবং মনুষ্যত্বের দিককে প্রতিনিধিত্ব করে। 

গুল মোহাম্মদ আদমজী নামের এক ব্যাক্তির হাত ধরে গড়ে উঠে এই আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ। যা বর্তমানে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কতৃপক্ষ পরিচালনা করে আসছে। 

বলে রাখা ভালো, প্রতিষ্ঠানটির অধিভুক্তি হলো মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এবং বর্তমানে এর চেয়ারম্যানের পদে দায়িত্ব পালন করছেন বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মুশফিকুর রহমান, পিএসসি। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষের পদে রয়েছেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আল ফারুক সিদ্দিকী, বিএসপি, এনডিইউ, এএফডব্লিউসি, পিএসসি, এমফিল। 

৬,৫০০ জন শিক্ষার্থীকে মানুষের মতো মানুষ করে তোলার দায়িত্ব নিয়ে বর্তমানে এগিয়ে চলেছে আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর শিক্ষা কার্যক্রম৷ কলেজটিতে বাংলা এবং ইংরেজি দুটো ভাষাতেই পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার কারণে শিক্ষার্থীরা যেমন একদিকে নিজের ভাষাকে শুদ্ধভাবে গ্রহণ করতে শিখছে ঠিক তেমনই নিজেকে গড়ে তোলার জন্যে প্রয়োজনীয় ইংরেজি ভাষাকেও ভালোভাবে রপ্ত করার সুযোগ পাচ্ছে। 

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজে মূলত ৪ টি দলে সকল শিক্ষার্থীদের ভাগ করা হয়েছে। এই ৪ টি দলের নাম হলো জাহাঙ্গীর (জ), হামিদুর (হ), মোস্তফা (ম) এবং রউফ (র)। পড়াশোনার পাশাপাশি কলেজের যাবতীয় বাৎসরিক তথ্য জানানো এবং শিক্ষার্থীদের লেখালেখির প্রতি থাকা প্রতিভাকে সুযোগ দেওয়ার উদ্দেশ্যে কলেজটি প্রতি বছর একটি ম্যাগাজিন প্রকাশ করে থাকে। যার নাম হলো “প্রতীতি”। 

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর অবস্থান 

এবার চলুন আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর অবস্থান সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক। আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর সম্পূর্ণ ঠিকানা হলো ঢাকা সেনানিবাস, ঢাকা ১২০৬, বাংলাদেশ। 

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর ইতিহাস

শুরুতে আদমজী ক্যান্টোনমেন্ট কলেজ ইংরেজি মাধ্যমের কারিকুলাম নিয়ে যাত্রা শুরু করে। সে-সময় পাকিস্তানে একজন বড় ব্যবসায়ী ছিলেন। নাম গুল মোহাম্মদ আদমজী। মূলত এই ভদ্রলোকের হাত ধরেই স্থাপিত হয় কলেজটি৷ 

কলেজটি প্রতিষ্ঠার সময় এর ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন তৎকালীন পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি ফিল্ড মার্শাল আইয়ুব খান। ওমর এন্ড সন্স লিমিটেডের তত্বাবধানে আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ নামক এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি গড়ে উঠে৷ বলে রাখা ভালো শুরুতে কলেজটির প্রথম দুইজন অধ্যক্ষ ছিলেন ইংরেজ। যার ফলে শুরুতে প্রতিষ্ঠানটির ভাষা হিসেবে একমাত্র মাধ্যম ছিলো ইংরেজি! 

আদমজী ক্যান্টোনমেন্ট কলেজের শিক্ষা কার্যক্রমে শুরুতে ব্রিটিশ পাবলিক স্কুলের মান ফলো করা হয়। এছাড়াও প্রতিষ্ঠানটির স্থাপনা নকশায় ব্যবহার করা হয় বিশিষ্ট স্থপতি থারিয়ানির স্থাপত্য নকশা। সুতরাং বোঝাই যাচ্ছে আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজের শুরুটা হয়েছিলো ব্রিটিশ শিক্ষা কার্যক্রম ফলো করেই! 

পরবর্তীতে বাংলাদেশ যখন স্বাধীনতা লাভ করে, ঠিক তখন থেকেই অন্যান্য শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের মতো আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজেও ব্যবহার করা হয় বাংলা ভাষা। শুরুতে কলেজটি একটি বিদ্যালয়ের সাথে যুক্ত থাকলেও ১৯৯৫ সালে এসে এটির কলেজ শাখাকে বিদ্যালয় শাখা থেকে আলাদা করা হয়। 

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর স্থাপনাশৈলী 

শিক্ষার্থীরা যেনো একটি মানসম্মত প্রতিষ্ঠানে মনোযোগের সাথে শিক্ষাজীবনের একটি অংশ পার করতে পারে, সে চিন্তা মাথায় রেখেই আদমজী ক্যান্টোনমেন্ট কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিলো। 

এই কলেজটি প্রায় ১০ একর জায়গার উপর স্থাপিত একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। শুধু মূল কলেজ রুমগুলি ছাড়াও প্রতিষ্ঠানটিতে রয়েছে একটি প্রশাসনিক ভবন। শিক্ষার্থীরা যেনো বিজ্ঞান বিষয়টিকে নিয়ে আরো ভালোভাবে রিসার্চ করতে পারে সে কথা বিবেচনা করে প্রতিষ্ঠানটিতে তৈরি করা হয়েছে একটি বিজ্ঞান ভবন। 

একাডেমিক লাইনের বইয়ের পাশাপাশি বাহ্যিক ক্যাটাগরির বিভিন্ন শিক্ষণীয় বই দ্বারা সাজানো হয়েছে কলেজটির গ্রন্থাগার ভবনকে। এছাড়াও আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজে রয়েছে একটি বিবিএ ভবন এবং একটি মাস্টার্স ভবন।

শিক্ষার্থীদের শারিরীক ও মানসিক বিকাশকে অব্যাহত রাখতে কলেজটিতে রয়েছে একটি বিশাল খেলার মাঠ। ধর্মীয় দিককে সক্রিয় রাখতে কলেজের সাথেই লাগানো একটি মসজিদ রয়েছে। সাথে রয়েছে একটি বাগান, একটি ক্যাফেটেরিয়া, একটি শহীদ মিনার ও একটি মঞ্চ বা শহীদ রুমী মঞ্চ।

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর শিক্ষা কার্যক্রম

এবার আসি আদমজী ক্যান্টোনমেন্ট কলেজ এর শিক্ষা কার্যক্রম সম্পর্কিত ব্যাপারে। কলেজটিতে শিক্ষা, শৃঙ্খলা এবং নৈতিকতাকে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয়ে থাকে। যেহেতু এটি একটি উচ্চমাধ্যমিক ক্যাটাগরির শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সেহেতু এসএসসি রেজাল্ট প্রকাশিত হলেই কলেজটিতে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়। তবে তার আগে চারিদিকে এর ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ছড়িয়ে দেওয়া হয়। এক্ষেত্রে আবেদন প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করার উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হয় অনলাইন মাধ্যমকে। 

অন্যান্য কলেজের মতো আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাব্যবস্থায় মানবিক, ব্যবসা এবং বিজ্ঞান শাখা রয়েছে। এক্ষেত্রে শুধুমাত্র মানবিক শাখায় বাংলা সংস্করণ থাকলেও বাকি দুটি শাখাতে বাংলা, ইংরেজি দুটো ভাষাকেই ব্যবহার করা হয়ে থাকে। 

সবচেয়ে সুবিধার ব্যাপার হলো যারা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ইংরেজি, অর্থনীতি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, হিসাববিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা সাবজেক্টের উপর অনার্স, মাস্টার্স বা বিবিএ করতে চাইবে তারা এই আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকেই পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারবে। কারণ এটি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে থাকা একটি ক্যান্টনমেন্ট কলেজ।

আদমজী ক্যান্টোনমেন্ট কলেজে ভর্তির পরবর্তী সময়ে একটি মেধাতালিকা তৈরি করা হয়। যা সাধারণত নতুন ভর্তি হওয়া ছাত্র-ছাত্রীদের এসএসসি পয়েন্টের উপর ভিত্তি করে করা হয়ে থাকে। এছাড়াও কলেজটি যেহেতু একটি ক্যান্টনমেন্ট কলেজ সেহেতু ভর্তি প্রক্রিয়ায় সেনাবাহিনীর সন্তানদের আলাদা কোটা ব্যবহারের সুযোগ করে দেওয়া হয়। 

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজে পড়ার সুবিধা 

মূলত আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজে পড়ার সুবিধা নিয়ে যদি বলতে হয় তবে শুরুতে বলবো প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষাব্যবস্থার মান নিয়ে। একজন শিক্ষার্থী যদি একটি নির্দিষ্ট রুটিন ফলো করে শৃঙ্খল জীবনে অভ্যস্ত হয়ে পড়াশোনা চালিয়ে যেতে চায় তবে আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ হতে পারে পার্ফেক্ট চয়েস। 

এছাড়াও কলেজটিতে পড়াশোনা করার অন্যান্য সুবিধাগুলিও প্রায় দেখার মতো। কলেজটির কম্পিউটার ল্যাবে রয়েছে প্রায় ১০০ টিরও বেশি কম্পিউটার। এছাড়াও মেইন বিল্ডিংটিতে রয়েছে লিফ্ট ব্যবহার করার সুবিধা। যদিও অন্য বিল্ডিংগুলিতে আপাতত এই ব্যবস্থা নেই। 

আদমজী ক্যান্টোনমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখে প্রতিষ্ঠানটিতে ব্যবস্থা করা হয়েছে একটি প্রাথমিক চিকিৎসা কেন্দ্র। প্রায় প্রতিটি ক্যাটাগরির ডাক্তার এখানে নিয়মিত সেবা দিয়ে আসছে। এছাড়াও সপ্তাহে মানসিক স্বাস্থ্যের পরিস্থিতি চেক করার জন্যে একজন সাইকোলজিস্টেরও ব্যবস্থা করা হয়েছে। 

ছেলে-মেয়েদের জন্যে কলেজটিতে রয়েছে আলাদা আলাদা কমনরুম। পাশাপাশি সায়েন্স ল্যাবসহ প্রতিটি ল্যাবে প্রয়োজনীয় সকল জিনিসপত্র মজুদ রয়েছে। ক্লাসে যেনো গরমের কারণে শিক্ষার্থীরা অস্বস্তিতে না ভুগে সে কথা বিবেচনা করে প্রতিটি ক্লাসেই এসির ব্যবস্থা করা হয়েছে। সবশেষে শিক্ষার্থীদের আইসিটির ব্যবহার সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান আহরণের উদ্দেশ্যে ব্যবস্থা করা হয়েছে মাল্টিমিডিয়া ক্লাস। 

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর পরিবেশ 

যেকোনো শিক্ষার্থীর কাছে তার নিজের প্রতিষ্ঠানের পরিবেশের প্রতি একধরণের গুরুত্ব কাজ করে। কারণ দিনের বেশিরভাগ সময় কাটিয়ে দেওয়ার প্রতিষ্ঠানটির পরিবেশ একজন শিক্ষার্থীর বেড়ে উঠার ক্ষেত্রে যথেষ্ট প্রভাব ফেলে। সেদিক দিয়ে আদমজী ক্যান্টোনমেন্ট কলেজও ব্যাতিক্রম নয়। 

প্রতিষ্ঠানটি শিক্ষার্থীদের চমৎকার পরিবেশে পড়াশোনার সুযোগ করে দিয়েছে৷ শুধুমাত্র শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটিই নয়! বরং পুরো ক্যান্টমেন্ট এরিয়ায় যথেষ্ট সুন্দর পরিবেশ থাকায় শিক্ষার্থীরা পড়তে পড়তে বোর ফিল করার সুযোগই পায় না। চারিদিকে থাকা গাছগাছালির ছায়া, ঠান্ডা বাতাস, মানসম্মত খাবারের ক্যান্টিন…সবমিলিয়ে আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর পরিবেশ প্রসংশার যোগ্য! 

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর কিছু অবাক করা তথ্য 

আর্টিকেলের বিভিন্ন অংশে আদমজী ক্যান্টোনমেন্ট কলেজ সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলি জেনে নিলেন। এবার চলুন এই কলেজ সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ এবং একই সাথে ইন্টারেস্টিং কিছু পয়েন্ট সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক। 

একেবারে কাক ডাকা ভোরে কলেজটিতে গেলে রবীন্দ্র সংগীতের সুর কানে বাজবে। প্রতি বার্ষিক পরীক্ষায় যারা একটির বেশি সাবজেক্টে ফেল করবে তাদের কলেজ থেকে বের করে দেওয়া হয়। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে দেশের সবচেয়ে বড় ক্যাম্প ছিলো এই আদমজী ক্যান্টনমেন্ট। 

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজে পড়ার খরচ

আদমজী ক্যান্টোনমেন্ট কলেজে যারা কোটা নিয়ে পড়ছে তাদের বেতন ১১২৫ টাকা। অন্যদিকে যারা কোটা ছাড়াই প্রতিষ্ঠানটিতে পড়াশোনা করছে তাদের বেতন ২৫৫০ টাকা। 

ইতি কথা

আদমজি ক্যান্টনমেন্ট কলেজ সম্পর্কিত তথ্যগুলি জানতে পেরে নিশ্চয় প্রতিষ্ঠানটির প্রতি আপনার শ্রদ্ধাবোধ বেড়ে গেছে! শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তিবর্গের এই অক্লান্ত পরিশ্রম প্রতিবারের মতো স্বার্থক হোক। এমনটাই আশা করে আজকের মতো বিদায় নিচ্ছি। পরবর্তীতে কোনো এক ইন্টারেস্টিং টপিক নিয়ে আবারো হাজির হবো! সে-পর্যন্ত ভালো থাকুন। 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *